# Class-Six(VI)।।Bangla)।। পিঁপড়ে(Pripre)।।Part-1

Class-Six(VI)।।Bangla)।। পিঁপড়ে(Pripre)।।Part-1  

পিঁপড়ে
অমিয় চক্রবর্তী

আহা পিঁপড়ে ছোটো পিঁপড়ে ঘুরুক দেখুক থাকুক 
কেমন যেন চেনা লাগে ব্যস্ত মধুর চলা
স্তব্ধ শুধু চলায় কথা বলা
আলোয় গন্ধে ছুঁয়ে তার ওই ভুবন ভরে রাখুক, 
আহা পিঁপড়ে ছোটো পিঁপড়ে ধুলোর রেণু মাখুক।। 
ভয় করে তাই আজ সরিয়ে দিতে 
কাউকে, ওকে চাইনে দুঃখ নিতে। 
কে জানে প্রাণ আনল কেন ওর পরিচয় কিছু, 
গাছের তলায় হাওয়ার ভোরে কোথায় চলে নীচু— 
আহা পিঁপড়ে ছোটো পিঁপড়ে সেই অতলে ডাকুক। 
মাটির বুকে যারাই আছি এই দু-দিনের ঘরে 
তার স্মরণে সবাইকে আজ ঘিরেছে আদরে।

অমিয় চক্রবর্তী (১৯০১-১৯৮৬) :
আধুনিক বাংলা কবিতার অন্যতম প্রধান কবি। প্রথম জীবনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ব্যক্তিগত সচিব ছিলেন। একমুঠো, পারাপার, পালাবদল, পুষ্পিত ইমেজ, ঘরে ফেরার দিন তাঁর বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যু পলজ্ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ছিলেন। ১৯৬৩ সালে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার পান।

১.১ অমিয় চক্রবর্তী কোথায় অধ্যাপনা করতেন?
উত্তর। অমিয় চক্রবর্তী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যু পলজ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করতেন। 

১.২ তার দুটি কবিতার বইয়ের নাম লেখো।
উত্তর। তার দুটি কবিতার বইয়ের নাম হল 'পুষ্পিত ইমেজ’ ও ‘ঘরে ফেরার দিন।

২. নীচের প্রশ্নগুলির নিজের ভাষায় উত্তর লেখো :
২.১ কবির কী দেখে কেমন যেন চেনা লাগে' মনে হয়েছে?
উত্তর। ক্ষুদ্র জীব পিঁপড়ের আনাগোনা দেখে কবির ‘কেমন যেন চেনা লাগে' মনে হয়েছে।

২.২ কেমন যেন চেনা লাগে' কথাটির অর্থ বুঝিয়ে দাও।
উত্তর। কবির মনে হয়েছে পিঁপড়ের গতিবিধি তার পূর্বপরিচিত। তাই তিনি একথা বলেছেন, 

২.৩ কবি কাউকে দুঃখ দিতে চাননি কেন?
উত্তর। কবির ইচ্ছা ছোটে। পিঁপড়ে ধুলোর রেণু মেখে তার স্বাভাবিক জীবনযাত্রা অব্যাহত 
রাখুক। তাই তিনি তাকে স্থানচ্যুত করে দুঃখ দিতে চাননি।

২.৪ 'কোন অতলে ডাকুক – কে কাকে এই ডাক দেয়? 
উত্তর। গাছের নীচে কোমল হাওয়া বইতে থাকে। সে ছোটো পিঁপড়কে এই ডাক দেয়।

২.৫ কবি আজ প্রাণের কোন পরিচয় পেয়েছেন?
উত্তর। চলমানতাই জীবন আর থেমে থাকাই মৃত্যু। এই কবিতার কবি আমাদের প্রাণের চলমানতাকে বুঝিয়েছেন। 

২.৬ 'দু দিনের ঘর' বলতে কী বোঝ? 
উত্তর। আমাদের মতো মানুষের জীবন ক্ষণস্থায়ী। তাই কবি আমাদের জীবনের ক্ষণস্থায়িত্বকে বোঝাতে ‘দু দিনের ঘর' কথাটি ব্যবহার করেছেন।

৩. প্রার্থনা, নির্দেশ, অনুরোধ বোঝাতে বাংলায় ক্রিয়ার শেষে উক' যোগ হয়। (যেমন এই কবিতায় থাক্‌ - উক = থাকুক) কবিতা থেকে এমন আরও পাঁচটি শব্দ খুঁজে বের করো।
উত্তর। ঘুরুক, দেখুক, রাখুক, মাখুক, ডাকুক।

৪. নীচের সমোচ্চারিত ভিন্নার্থক শব্দগুলির অর্থপার্থক্য দেখিয়ে প্রত্যেকটি ব্যবহার করে পৃথক পৃথক বাক্যরচনা করো।
উত্তর। ভরে 
ভরতি করেবাড়ির মোয়রা কলশিতে জল ভরে আনে। 
ভোরে—খুব সকালেভোরের বেলা পাখিরা আমাদের ঘুম ভাঙায়।

ঘরে 
বাড়িতেঘরে ঘরে আজ উৎসব চলছে। 
ঘোরেবেড়ায়ঘোরাই তার নেশা।

ছুঁয়ে
—স্পর্শ করে—বড়োদের চরণ ছুঁয়ে আমরা প্রণাম করি। 
চুঁয়ে ভেদকরে পুরানো বাড়ির ছাদ থেকে বর্ষায় জল ছুঁয়ে পড়ছে।

আনল
নিয়ে এল গ্রীষ্মের বৃষ্টি আমাদের স্বস্তি বয়ে আনল। 
অনলঅগ্নিঅনল সর্বভুক 

মধুরমিষ্ট–তোমার মধুর আচরণের জন্য তুমি আমার প্রিয়।
মেদুরমাখানোবাবামায়ের মমতামেদুর দৃষ্টি সন্তানকে সাহস দেয়।

৫. পাশের শব্দঝুড়ি থেকে ঠিক শব্দ বেছে নীচের ছকটি পূরণ করো : 
শব্দঝুড়ি—মাটি, পিপীলিকা, যারা, ধুলা।
উত্তর। পিপীলিকা > পিঁপড়ে 
মৃত্তিকা > মাটি
ধুলো > ধূলা 
যাহারা > যারা

৬. কবিতা থেকে সর্বনামগুলি খুঁজে বের করে আলাদা আলাদা বাক্যে ব্যবহার করো।
উত্তর। সর্বনামগুলি হল-তার, ওকে, ও, কাউকে, ওই যারা।

তার
তার কথা আমার জানা নেই। ওকেওকে আমার কাছে ধরে আনো। ওর–ওর কথায় আমি চলি না। কাউকে—একথা কাউকে বলবে না। ওই–ওহ যে সামনের মাঠ ওখানেই আমি থাকি। যারা—যারা কল এসেছিলে তারা সবাই জানো।

৭. নীচের স্তপ্তদুটি মেলাও: 
উত্তর। বি + স্মরণ = বিস্মরণ।
প্রতি +দিন=প্রতিদিন।
অ + চেনা অচেনা।
কু + কথা = কুকথা
সু + মধুর = সুমধুর।


Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.